Story of an Unknown Friend

তখন কলেজে পড়ি। দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। তখন আমার এবং আমার বাকি বন্ধুদের সাঙ্গে, প্রথম দেখা তার। প্রথম দিন থেকেই, আমাদের সকলের কাছে, খুব আদরের পাত্র ছিল সে। ভালবেসে আমরা তার নাম দিয়েছিলাম “ভোলু”। রং তার কালো ছিল বটে, কিন্তু দেখতে ভালই ছিল। একদম সুপুরুষ। কলেজের ক্লাস শেষ হলে মাঝে মাঝেই আমাদের সঙ্গ দিত সে। মাঠে বসে আমাদের সাঙ্গেই আড্ডা মারত। আমাদের সঙ্গে চা খেত। কেক খেত। বিস্কুট খেত। ওর সাঙ্গে খেলা করে, ওর পিছনে লেগে, ওকে তাড়া করে, ওকে দৌড় করিয়ে, সময়টা কেটে যেত বেশ। কোনও সময় দেখতাম সে রেগে যাচ্ছে, আবার পরের মুহূর্তে বেশ আনন্দ পাচ্ছে। এই করতে করতে আমাদের সঙ্গ সে ছাড়ত না। আমারাও মজা পেতাম ওকে নিয়ে। এমনও হয়েছে যে আমরা ক্লাস করছি, এমন সময় দরজা দিয়ে তার প্রবেশ। একদম ক্লাসরুমের ভিতর। তারপর আনেক চেষ্টা করে তাকে বের করতে হত। সে এক কাণ্ড হত তখন। প্রফেসর হতভম্ব। পড়াবে, নাকি রঙ্গ দেখবে। আমাদের ভারী মজা লাগত।

এই “ভোলু”, যার কথা বলছি, হল একটি রাস্তার কুকুর। একরকম, খুব স্বাভাবিক বন্ধু হয়ে উঠে ছিল সে আমাদের। কলেজ ছাড়ার পর, অনেক দিন দেখা হয়নি ভোলুর সাঙ্গে। গত বছর খোঁজ নিয়ে জেনেছিলাম সে মারা গেছে গাড়ি চাপা পরে।

আজ এক বছর পর দেখা, ভোলুর মতো দেখতে, অন্য এক কুকুরের সাথে। প্রথমে দেখে মনে হল যেন আমাদের ভোলু - শুধু বয়েসের ছাপ পড়েছে তার শরীরে, আগের মতো সেই তেজ আর নেই। মনে হল যেন অবহেলায় দিন কাটছে তার। তারপর ভেবে দেখলাম সে কি করে হতে পারে? তার তো মারা গিয়ে এক বছর হয়ে গিয়েছে। তারপর ভেবে দেখলাম এটা ভোলু নয়, ভোলুরই মতো দেখতে অন্য কেউ। হঠাৎ মনের গভীরে ভীর করে এল নানা কথা, সেই “তারই” ব্যাপারে। ভোলুর ব্যাপারে। 

Bholu

Check Bholu's Facebook Profile

19 comments

Popular posts from this blog

5 Epic India-Pakistan Matches in ICC Events

Review: The Insider - Decoding the Craft of Cricket

Indian Police